নিজস্ব প্রতিবেদক

ডিজেল ও কেরোসিন তেলের মূল্য ও বাসভাড়া বৃদ্ধির প্রতিবাদে দেশব্যাপী দুই দিনের বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন বিএনপি। আগামী ১০ এবং ১২ নভেম্বর দলটি বিক্ষোভ করবে বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ মহানগর বিএনপির যৌথভাবে আয়োজিত মানববন্ধনে এই কর্মসূচি ঘোষণা করেন তিনি।

কর্মসূচি অনুযায়ী ১০ নভেম্বর ঢাকা মহানগরী ছাড়া সারা দেশের মহানগরগুলোতে এবং ১২ নভেম্বর জেলা শহরগুলোতে বিক্ষোভ করবে দলটি।

মানববন্ধনে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এই সরকার পকেটমার সরকার। পরপর দু’বার সরকার জনগণের পকেট কেটেছে; একবার ডিজেল-তেলের দাম বাড়িয়ে, দ্বিতীয়বার বাসের ভাড়া বৃদ্ধি করে। ‘এটা দাম বাড়ানোর পাতানো খেলা, সাজানো খেলা। সরকারের চরিত্রই হচ্ছে লুট করা। এরা একদিক দিয়ে জনগণের পকেট কাটছে, অন্যদিকে নিজেদের পকেট ভারী করছে। তারা জনগণের কথা চিন্তা করে না।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আজ ইউপি নির্বাচন হচ্ছে। আওয়ামী লীগ নিজেরা-নিজেরাই মারামারি করে। ভোট কেন্দ্রে মানুষ ভোট দিতে যায় না, তারা নিজেরাই ভোট দিয়ে দিচ্ছে। জনগণ ভোট দিতে পারছে না।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এদেশের মানুষকে জাগিয়ে তুলতে হবে। এই সরকার যতদিন থাকবে, ততদিন মানুষের ভোগান্তি বাড়বে। তাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে জনগণকে মাঠে নামাতে হবে।’

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম, সদস্য-সচিব রফিকুল আলম মজনু, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সদস্য সচিব আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

গত বুধবার ডিজেল ও কেরোসিন তেলের দাম ৬৫ থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে সরকার। এরপরই শুক্রবার থেকে বাস ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে সারাদেশে ধর্মঘট শুরু হয়। একই সঙ্গে ডিজেলের দাম কমানো কিংবা ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে ধর্মঘটে নামে পণ্য পরিবহনে সংশ্লিষ্ট শ্রমিক-মালিকরা। আর শনিবার থেকে শুরু হয় নৌপরিবহনে ধর্মঘট। গতকাল রবিবার বাসের ভাড়া বাড়ানোর পর বাস ধর্মঘট প্রত্যাহার করে পরিবহন মালিক সমিতি। তবে, পণ্য ও নৌপরিবহনে ধর্মঘট প্রত্যাহার হয়নি।

By sohail