বিনোদন ডেস্ক

মাদক-কাণ্ডে শাহরুখ খানের ছেলে আরিয়ান খানকে জামিন দেয়নি আদালত। আগামী ৭ অক্টোবর পর্যন্ত তাকে নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরোর (এনসিবি) হেফাজতে থাকতে হবে। জামিন পাননি আরিয়ানের বন্ধু আরবাজ মার্চেন্ট ও মুনমুন ধামেচাও। সোমবার তাদের আদালতে তোলা হয়েছিল।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, আরিয়ান ও আরবাজকে জেরা করে আন্তর্জাতিক মাদক চক্রের হদিশ মিলতে পারে- এমনটাই মনে করছে এনসিবি। সেই কারণেই তাদের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন জানিয়েছিল এনসিবি। আদালত সেই আবেদন মঞ্জুর করে।

সোমবার রাতে আরবাজকে নিয়ে মুম্বাইয়ের বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি চালায় এনসিবি। মঙ্গলবার আরিয়ানকে সঙ্গে নিয়ে তল্লাশি অভিযান চালাবে সংস্থাটি। এমনকি, তল্লাশি হতে পারে শাহরুখ খানের বাংলো মান্নাতেও। আইনি মতেই যেকোনো অভিযুক্তের বাড়ি তল্লাশি চালাতে পারে এনসিবি। সেই সূত্রেই মান্নাতে হানা দিতে পারে এনসিবি।

যদিও আরিয়ানের আইনজীবী দাবি করেছেন, তার মক্কেলের কাছ থেকে কোনো ধরনের মাদকই পায়নি এনসিবির কর্তারা। অন্যদিকে, জেরার মুখে আরিয়ান কান্নায় ভেঙে পড়লেও এনসিবিকে তিনি সবরকমের সাহায্য করছে।

এনসিবি জোনাল ডিরেক্টর সমীর ওয়াংখেড়ে জানিয়েছেন, শনিবার মাদক পার্টি থেকে আটক হওয়া আটজনের মধ্যে থেকে পাঁচ জনকে গ্রেপ্তারর করা হয়েছে। এছাড়া মুম্বাইয়ের এই মামলায় আরও অনেককেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এর থেকে বেশি তথ্য শেয়ার করতে নারাজ তিনি।

এদিকে, সোমবার ছেলের শুনানির সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন গৌরী খান। তার আগে রবিবার এক দিনের জন্য আরিয়ানকে এনসিবির নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। সোমবার আদালতের কাছে জিজ্ঞাসাবাদের কারণেই তাদেরকে ১১ অক্টোবর পর্যন্ত হেফাজতে রাখার আবেদন জানায় এনসিবি।

এদিন সংস্থাটির তরফ থেকে জানানো হয়, তদন্তের জন্যই আরিয়ানসহ গ্রেপ্তারকৃতদের হেফাজতে রাখা জরুরি। আরিয়ান খানের ফোন থেকে তার বিরুদ্ধে জোরালো প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে আদালতে দাবি করে এনসিবি। আরিয়ানের সঙ্গে আন্তর্জাতিক মাদকচক্রের যোগ রয়েছে বলেও জানায় তারা।

পাশাপাশি এদিন আরিয়ানের জামিনের আবেদন করেন তার আইনজীবী সতীশ মানশিন্ডে। তবে সেই আবেদন খারিজ করে আগামী ৭ অক্টোবর পর্যন্ত আরিয়ানকে এনসিবির হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেয় আদালত।

জানা গেছে, একাধিক ধারায় মামলা করা হয়েছে আরিয়ানের বিরুদ্ধে। নারকোটিক ড্রাগস অ্যান্ড সাইকোট্রপিক সাবস্ট্যান্সেস ১৯৮৫ আইনের ৮সি, ২৭, ২২ নম্বর ধারা, এছাড়া এমডিএমএ ও এক্সট্যাসি আইনের অন্তর্গত ১৪(১), ১৪ (বি), ২০(বি) ধারায় মামলা করা হয়েছে আরিয়ানের বিরুদ্ধে।

শনিবার রাতে এক মাদক পার্টি থেকে শাহরুখপুত্র আরিয়ানসহ আটজনকে আটক করে এনসিবি। আরিয়ানের বিরুদ্ধে তারা মাদকদ্রব্য সেবন ও মাদক কেনা-বেচার গুরুতর অভিযোগ এনেছে। দীর্ঘ ১৬ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পর বাজেয়াপ্ত করা হয় আরিয়ানের ফোন। খতিয়ে দেখা হয়, শেষ কয়েকদিন কার কার সঙ্গে ফোনে ও হোয়াটস অ্যাপে কথা বলেছেন তিনি।

এর পরই আরিয়ান, আরবাজ মার্চেন্ট ও মুনমুন ধামেচা, নুপূর সারিকা, ইশমিত সিং, মোহক জয়সওয়াল, বিক্রান্ত চোকার, গোমিত চোপড়াকে গ্রেপ্তার দেখায় এনসিবি।

By sohail