পীযূষ কুমার বিশ্বাস, রাজবাড়ী প্রতিনিধিঃ রাজবাড়ী সদর থানার খানগঞ্জ ইউনিয়নের আদিবাসি নৃ-গোষ্ঠী বাগদী সম্প্রদায়ের দুঃর্বিসহ জীবন যাপন সংক্রান্ত বিষয়ে সংবাদ প্রকাশের পর তাদের সাহায্যার্থে হাত বাড়ালেনে রাজবাড়ীর উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা। গত ৯ আগষ্ট নিউজ চ্যানেলে সংবাদ প্রকাশ হলে ১৮ আগষ্ট আদিবাসি বাগদী পল্লী পরিদর্শনে আসেন রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফাহমি মো. সায়েফ, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এ্যাডঃ মোঃ ইমদাদুল হক বিশ্বাস, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ রকিবুল হাসান পিয়াল, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোছা: আলেয়া বেগম, খানগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ আতাহার হোসেন তকদীর, স্বেচ্ছাসেবী সমাজসেবক মোঃ আক্কাস আলী সহ অন্যান্য প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক ব্যাক্তিবর্গ। এই পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর অদিবাসি সম্প্রদায়ের লোকেরা অর্ধাহারে-অনাহারে দুঃর্বিসহ জীবনযাপন করছে। সহায়-সম্বল বলতে স্যেৎসেতে নর্দমা ও নোংরা পরিবেশে জরাজীর্ণ ঘরটুকুই যাদের একমাত্র আশ্রয়স্থল। তারা মূলধারা থেকে বিচ্ছিন্ন জীবনমানহীন ও কর্মহীন সময় কাটাচ্ছে বছরের পর বছর।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই ক্ষুদ্র নৃ-তাত্ত্বিক পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জীবন মান উন্নয়নে জন্য গত অর্থ বছরে বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়েছে। ২০২১-২২ এই অর্থ বছরে তাদের জন্য আরও ৮০ টি ঘরের এবং ৪০ জনকে শিক্ষা বৃত্তি দেওয়ার জন্য চাহিদা দেওয়া হয়েছে। এবং সেটি এখনও আসেনি আসলে তাদের মাঝে বিতরন করার আশ্বাস প্রদান করেন। পাশাপাশি ২০ লক্ষ টাকা ব্যায়ে জাইকার মাধ্যমে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের একটি প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে। যা অতি শিঘ্রই বাস্তবায়ন হবে বলে জানান।
স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সমাজসেবক মোঃ আক্কাস আলী বলেন, রাজবাড়ী জেলায় এই আদিবাসী নৃ-গোষ্ঠী বসবাস করে। প্রচারিত সংবাদে এদের দূঃর্বিসহ জীবনযাপনের প্রতিবেদন প্রচার হওয়ার পর গত ১৮ আগষ্ট রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, অন্যান্য কর্মকর্তা ও নেতৃবৃন্দসহ তারা সরেজমিনে এসে আদিবাসিদের দুঃখ দূর্দশা দেখেন। বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যাবস্থায় জাইকার একটি পানি প্লান্টিং প্রজেক্ট অনুমোদন দিয়েছে, শুনেছি যার মূল্য ২১ লক্ষ টাকা। তিনি আরো বলেন, আমরা মানুষেরা বিভিন্ন মতের সৃষ্টি করেছি কিন্তু স্বয়ং আল্লাহতালা মানুষ সৃষ্টি করেছেন। আর এই অসহায় মানুষের জন্য যারা কথা বলবে, কাজ করবে আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।
মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) খানগঞ্জ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আতাহার হোসেন তকদীর বলেন, এই ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী আদিজাতবাসী সম্প্রদায়ের দুঃখ দুর্দশার কথা নিউজ চ্যানেলে প্রচার করার পর রাজবাড়ী জেলাসহ সারা দেশের দৃষ্টি গোচর হয়। সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর তাৎক্ষনিকভাবে আমাদের রাজবাড়ী সদর উপজেলা প্রশাসন এ বিষয়ে তদন্তে আসেন। আসার পর ইতিমধ্যে ১০ টি ঘর আবার নতুন করে বরাদ্ধ করা হয়েছে। এই নৃ-গোষ্ঠী পিছিয়েপড়া জনগোষ্ঠীর জন্য ২০ লক্ষ টাকা ব্যায়ে পানি সাপ্লাইয়ের ব্যাবস্থা করা হচ্ছে। বিষয়টি নিউজ প্রচার করার কারনেই সম্ভব হয়েছে বলে আমি মনে করি। এছাড়াও বাজবাড়ী জেলার ডিসি, সদর উপজেলা ইউএনও, চেয়ারম্যান, এমপি মহোদয় সহ সবাই আশ্বস্ত করেছেন বেলগাছির এই পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী যাতে স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারে এবং অন্যান্য মানুষের মত সুযোগ সুবিধা পায় সেই ব্যবস্থা করার জন্য তারা ব্যবস্থা নিবেন। তারা যাতে শিক্ষার মাধ্যমে এগিয়ে দেশ গড়ার কাজে এবং ভাল কাজে অংশ নিতে পারে সেই ব্যবস্থা নিবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।