ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খানের আমেরিকায় অবস্থান প্রসঙ্গে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আজকের পত্রিকায় দেখলাম, ওয়াসার এমডি তিন মাসের ছুটি নিয়ে আমেরিকা গেছেন। এই রকম একটা ক্রাইসিস, গরম আর কোভিডের মধ্যে ত্রাহী অবস্থায় তিনি নাকি আমিরিকায় গিয়ে সেখান থেকে অফিস চালাবেন। কেন, কারণটা কী? খোঁজ নিয়ে দেখেন যে, আমেরিকায় তার কয়টা বাড়ি হয়েছে, কী হয়েছে…।’

শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপির উদ্যোগে বর্তমান সরকারের শাসনামলে বিভিন্ন সময়ে ‘গুম ও খুন’ হওয়া নেতাকর্মীদের পরিবারের সদস্যদের মাঝে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের দেওয়া ঈদ উপহার উপলক্ষে এই অনুষ্ঠান হয়।

ভ্যাকসিন সংগ্রহ করতে গিয়ে সরকার এখন ‘পানি ঘোলা করে খাচ্ছে’ বলে অভিযোগ করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘আমরা দেড় বছর আগেই বলেছিলাম যে, একটা সোর্স থেকে যেন ভ্যাকসিন না নেওয়া হয়। তারা (সরকার) একটা সোর্স থেকে ভ্যাকসিন নিয়েছে নিজেদের স্বার্থে। যার ফলে কী হয়েছে—ভ্যাকসিন নেই, ভ্যাকসিন পাওয়া যাচ্ছে না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা বলেছিলাম, চীন-রাশিয়া বিকল্প উৎসগুলো দেখা হোক। তারা সেটা করেনি। যার ফলে কী হতে যাচ্ছে? আজকে চীন-রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তি করতে যাচ্ছে। একটা বিশেষ প্রাণী আছে যারা ঘোলা করে পানি খায়। এদের অবস্থা হয়েছে তা-ই। এরা ঘোলা করে পানি খাচ্ছে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘যেহেতু তাদের (সরকার) জবাবদিহিতা নেই, কখনোই তাদের জবাব দিতে হয় না কারো কাছে, তাদের জনগণের সঙ্গে সম্পর্ক নেই; তাই আজকে তারা কোভিডকে নিয়ে ব্যবসা করেছে। জনগণের সমস্যার সমাধান করেনি।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এদের (আওয়ামী লীগ সরকার) হাত থেকে যদি আমরা দেশকে রক্ষা করতে না পারি গোটা জাতি নিঃশেষ হয়ে যাবে। এদের হাত থেকে পরিত্রাণ পেতেই হবে। আজকে চতুর্দিকে তাকিয়ে দেখবেন, সরকার বলতে কিছু নেই, প্রশাসন বলতে কিছু নেই, কোথাও কারো কোনও জবাবদিহিতা নেই। নো বডি হ্যাজ অ্যাকাউটেবলিটি টু এনিবডি।’

ফখরুল বলেন, ‘আমাদের দলের নেতাকর্মী গুম হয়েছেন ৫০০ এর বেশি। বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন যেগুলো আছে-সেগুলো এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্র ২০০৯ সাল থেকে ২০১৯ সালের ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত ৬০১ জনের গুম হওয়ার তথ্য জানিয়েছে। তাদের দেওয়া তথ্য মতে এই সময়ে দুই হাজার ৮১৭ জন বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন এবং গুলি করে হত্যা করা হয়েছে অনেককে। এতো যে মানুষকে প্রাণ দিতে হয়েছে, এতো যে তরুণকে চলে যেতে হয়েছে, এর জবাব অবশ্যই এই সরকারকে দিতে হবে, আওয়ামী লীগকে দিতে হবে। যারা গুম হয়ে গেছেন তাদের পরিবারের কাছে, গোটা জাতির কাছে তাদের (সরকার) জবাব দিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘ফ্যাসিস্ট কারা? যারা নির্বাচিত হয়ে আসে। এরা কিন্তু ক্ষমতায় এসে সেনাবাহিনীর মতো অন্যান্য কিছু দখল করে ফেলে না। এরা নির্বাচিত হয়ে আসে। দ্য নেইম অব ডেমোক্রেসি, দ্য নেইম অব ইলেকশন দে কাম টু পাওয়ার। আসার পরে তারা তাদের ক্ষমতাকে ধরে রাখার জন্য, ক্ষমতাকে চিরস্থায়ী করার জন্যে তখন গুম-খুনের এরকম কৌশল অবলম্বন করতে থাকে।’

ছাত্রদলের সভাপতিত্বে ও স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-দফতর সম্পাদক নাজমুল হাসানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান, স্বাধীনতা উদযাপনে মিডিয়া উপকমিটির সদস্য আতিকুর রহমান রুমন রুম্মন বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে ‘নিখোঁজ’ ছাত্র দলের নেতা নুরুজ্জামান জনি, জাকির হোসেন, তরিকুল ইসলাম তারা, মাহবুবুর রহমান বাপ্পী, তারিকুল ইসলাম ঝন্টু প্রমুখের পরিবারের সদস্যদের হাতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের পক্ষ থেকে ঈদ উপহার তুলে দেন বিএনপি মহাসচিব। গুম ও খুন হওয়া ৮৭৭ জন পরিবারের সদস্যদের বাড়িতে ঈদের এই উপহার বাড়িতে পৌঁছিয়ে দেওয়া হবে বলে আয়োজকরা জানান।

অনুষ্ঠানে বিএনপির কেন্দ্রীয় দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান, ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আমিনুল হক, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, যুব দলের সাইফুল আলম নিরব, সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, এসএম জাহাঙ্গীর, কামরুজ্জামান দুলাল, স্বেচ্ছাসেবক দলের আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, ইয়াসীন আলী, ছাত্র দলের ফজলুর রহমান খোকন, ইকবাল হোসেন শ্যামলসহ ছাত্র, যুব দল, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.