ক্রীড়া ডেস্ক

সুপার লিগ নিয়ে কড়া বিবৃতিই দিয়েছেন ফিফার সভাপতি। এরপরেও ক্লাব এবং ফুটবলারদের অনুপ্রেরণা দিতে থাকেন সুপার লিগের মূল উদ্যোক্তা ফ্লোরেন্টিনো পেরেজ। তবে পেরেজের কথাই কান না দেয়ে শুরু হওয়ার আগেই সুপার লিগ থেকে সরে গেল ইংল্যান্ডের ক্লাবগুলো।

সবার আগে সুপার লিগ থেকে সরে দাঁড়ানোর আগ্রহ প্রকাশ করে চেলসি। তবে তাদের আগেই এর আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয় ম্যানচেস্টার সিটি। পরে একে একে সরে দাঁড়ায় টটেনহ্যাম, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, লিভারপুল এবং আর্সেনাল। ফলে এখন সুপার লিগে বাকি রইল মাত্র ৬ ক্লাব।

ম্যানচেস্টার সিটি তাদের বিবৃতিতে জানিয়েছে, সুপার লিগ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে নাম প্রত্যাহারের কাজ শেষ করেছে ক্লাবটি। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তাদের বিবৃতিতে জানিয়েছে, ক্লাবের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সকলের সার্বিক প্রতিক্রিয়ার ভিত্তিতে সুপার লিগ থেকে নাম প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা।

মঙ্গলবার রাতে ব্রাইটন অ্যান্ড হোভ অ্যালবিওনের বিপক্ষে ম্যাচের আগেই যেমন স্ট্যামফোর্ড ব্রিজের বাইরে প্রায় হাজার খানেক সমর্থক জড়ো হয়ে তাদের প্রিয় দল চেলসির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানায়। আগের দিন সোমবার লিভারপুল-লিডস ইউনাইটেড ম্যাচেও দেখা মেলে একই রকম দৃশ্য।

সুপার লিগের বিরোধিতা করে ম্যাচের আগে ‘ফুটবল সমর্থকদের জন্য’ লেখা টি-শার্ট পরে অনুশীলন করে লিডসের খেলোয়াড়রা। ক্লাবের সমালোচনা করে অ্যানফিল্ডের বাইরে বিভিন্ন ব্যানার টাঙায় লিভারপুল সমর্থকরা।

মূলত বিশ্বব্যাপী প্রবল সমালোচনা ও বিরোধিতার কারণেই দলগুলো সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে, সুপার লিগের চুক্তির নিয়ম-নীতি কতটা শক্ত, তা পরিষ্কার নয়।

লিভারপুল ও ইংল্যান্ডের সাবেক ডিফেন্ডার জেমি কারাঘারের বিশ্বাস, কোনোভাবে যদি প্রিমিয়ার লিগের ছয় দলের একটি সুপার লিগ থেকে সরে দাঁড়ায় তাহলেই বিদ্রোহী এ লিগ ভেঙে পড়বে। এরই মধ্যে কারাঘার লিভারপুলের কোচ ক্লপ আর মিডফিল্ডার জেমস মিলনারের সঙ্গে কথা বলেছেন। তাঁদের সঙ্গে কথা বলার পর তিনি মোটামুটি নিশ্চিত কোনো না কোনোভাবে সুপার লিগের বিরুদ্ধ কেউ না কেউ রুখে দাঁড়াবে, ‘সবার কাছ থেকে (ক্লপ আর মিলনারের মতো) একই প্রতিক্রিয়া দরকার।’

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.