নিজস্ব প্রতিবেদক

মহামারি করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক হিসেবে দুই মাসের বেশি সময় ধরে টিকার প্রয়োগ চলছে দেশে। ইতিমধ্যে প্রথম ডোজের টিকা গ্রহণ করেছেন প্রায় ৫৭ লাখ মানুষ। আর দ্বিতীয় ডোজ গ্রহীতার সংখ্যা সাড়ে ১১ লাখের কিছু বেশি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, শনিবার পর্যন্ত দেশে টিকার প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন ৫৬ লাখ ৯৯ হাজার ৪২ জন। এরমধ্যে ৩৫ লাখ ৩৩ হাজার ৬৫৫ জন পুরুষ এবং নারী ২১ লাখ ৬৫ হাজার ৩৮৭।

আর এই টিকার দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণকারীর সংখ্যা ১১ লাখ ৫১ হাজার ৭৬৭। এরমধ্যে পুরুষ সাত লাখ ৮০ হাজার ৭৫৯ এবং নারী তিন লাখ ৭১ হাজার আটজন। এছাড়া শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ৭১ লাখ চার হাজার ৫৬৩ জন মানুষ টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে দুই লাখ ২১ হাজার ৬১৬ জন টিকার দ্বিতীয় ডোজ গ্রহণ করেছেন। এদের মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৪৩ হাজার ৩০৩ এবং নারী ৭৮ হাজার ৩১৩ জন। আর প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১২ হাজার ১৫৭ জন। এরমধ্যে পুরুষ সাত হাজার ৬৬৬ এবং নারী চার হাজার ৪৯১ জন।

এ পর্যন্ত ঢাকা বিভাগে টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন তিন লাখ ৩৯ হাজার ৫৩ জন। এরমধ্যে ঢাকা মহানগরীতে এক লাখ ৬৬ হাজার ৮৪৭ জন। ঢাকা বিভাগে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ১৭ লাখ ৬৫ হাজার ৪৪৯ ও ঢাকা মহানগরীতে নিয়েছেন আট লাখ ৯৬ হাজার ৯০৯ জন।
ময়মনসিংহ বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৫৬ হাজার ৫৫৬ জন, প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন দুই লাখ ৮৩ হাজার ৪২৫ জন। চট্টগ্রাম বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন দুই লাখ ৫৩ হাজার ৮৯০ জন, প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন ১১ লাখ ৫৩ হাজার ১৬ জন। রাজশাহী বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন এক লাখ ২১ হাজার ২৯৭ জন, প্রথম ডোজ ছয় লাখ ৫২ হাজার ৮৩০ জন।

রংপুর বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন এক লাখ ১০ হাজার ৩৮১ জন, প্রথম ডোজ পাঁচ লাখ ৮৫ হাজার ৩৪১ জন। খুলনা বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন এক লাখ ৩৩ হাজার ৮৩৭ জন, প্রথম ডোজ সাত লাখ ১৭ হাজার ৯৫৪ জন। বরিশাল বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৪৯ হাজার ৬৯৮ জন, প্রথম ডোজ দুই লাখ ৪৫ হাজার ২৯৪ জন এবং সিলেট বিভাগে দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৮৭ হাজার ৫৫ জন, প্রথম ডোজ দুই লাখ ৯৫ হাজার ৭৩৩ জন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ২৭ জানুয়ারি করোনার টিকা প্রদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। ওই দিন ২১ জনকে টিকা দেয়া হয়। পরদিন রাজধানীর পাঁচটি হাসপাতালে ৫৪৬ জনকে পর্যবেক্ষণমূলক টিকা দেয়া হয়। এরপর গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে দেশব্যাপী গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়।

প্রথম টিকা নেয়ার ৬০ দিন পর ৮ এপ্রিল থেকে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। দেশে করোনার প্রকোপ মারাত্মক আকার ধারণ করায় চলছে সর্বাত্মক লকডাউন। এর মধ্যেই টিকাদান কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.