নিজস্ব প্রতিবেদক

মহামারি করোনাভাইরাসে দেশে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৯৪ জন। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে ১০ হাজার ৮১ জন মারা গেলেন। করোনা শনাক্তের ৪০৪তম দিনে এসে দেশে ভাইরাসটিতে মৃত্যুর সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়াল।

একই সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরও চার হাজার ১৯২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত হয়েছেন সাত লাখ সাত হাজার ৩৬২ জন।

বৃহস্পতিবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে দেওয়া সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, বুধবার সকাল ৮টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত অ্যান্টিজেন ও আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে ১৯ হাজার ৯৫৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে চার হাজার ১৯২ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২১ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া ৯৪ জনের মধ্যে ৬৪ জন পুরুষ ও ৩০ জন নারী। বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে তাদের মধ্যে তিন জনের বয়স ৩১-৪০ বছরের মধ্যে, ১৪ জনের বয়স ৪১-৫০ বছরের মধ্যে, ২৫ জনের বয়স ৫১-৬০ বছরের মধ্যে ও ষাটোর্ধ্ব ৫২ জন।

২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন পাঁচ হাজার ৯১৫ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন পাঁচ লাখ ৯৭ হাজার ২১৪ জন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ৫১ লাখ ১৫ হাজার ৫৭২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, দেশে মোট পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮৩ শতাংশ। মোট শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৪ দশমিক ৪৩ শতাংশ ও মৃত্যুর হার এক দশমিক ৪৩ শতাংশ।

দেশে গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যুর খবর আসে। কয়েক মাস সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার ঊর্ধ্বগতিতে থাকার পর অনেকটা নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। চলতি বছরের শুরুতে করোনাভাইরাসের প্রকোপ অনেকটা নিয়ন্ত্রণে থাকলেও মার্চ মাস থেকে তা শুধুই বাড়ছে। বিশেষজ্ঞরা এটাকে বাংলাদেশে করোনার ‘দ্বিতীয় ঢেউ’ বলছেন। করোনা সংক্রমণ মারাত্মক আকার ধারণ করায় বুধবার থেকে এক সপ্তাহের সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.