সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের কাজ মুষ্টিমেয় ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের হাতে জিম্মি। এমন অভিযোগ একজন আইন প্রণেতার। অভিযোগ আমলে নিয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি দুই সদস্য বিশিষ্ট একটি সাব কমিটি গঠন করে দেয়। ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত অষ্টম বৈঠকে সাব কমিটি গঠন করা হয়। ওই সাব কমিটিকে পরবর্তী দুই মাসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হলেও ২০২১ সালের ১৮ মার্চ পর্যন্ত তারা কোন বৈঠকই করতে পারেননি।

অনিয়ম খুঁজতে গঠিত কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সালাউদ্দিনকে। আর কমিটির অপর সদস্য হলেন হবিগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. আবু জাহির। অষ্টম বৈঠকে কমিটি গঠন করার পর বৃহস্পতিবার (১৮ মার্চ) নবম বৈঠকে অনুষ্ঠিত হয়। নবম বৈঠকে অষ্টম বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতি তুলে ধরা হয় বলে কমিটি সূত্রে জানা যায়।

সাব কমিটি গঠনের পর দুই সদস্য একদিনের জন্যও বসতে পারেননি এমনকি বিষয়টি নিয়ে কোন আলাপ আলোচনাও হয়নি। তারপরেও অগ্রগতি নিয়ে আলাপ আলোচনা হয়েছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

অনিয়মের বিষয়টি কমিটিতে উত্থাপন করেন কমিটির সদস্য ও রাজশাহী-৪ আসনের সংসদ সদস্য এনামুল হক। তিনি কমিটিকে বলেন, মুষ্টিমেয় ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান একাধিক কাজ পাওয়ায় কাজের মান যথাযথ হয় না। এছাড়াও ঠিকাদারগণ সিন্ডিকেট করে কাজ নিয়ন্ত্রণ করে থাকে। এক প্রতিষ্ঠানের কাগজপত্র নিয়ে অন্য প্রতিষ্ঠান দরপত্রে অংশ গ্রহণ করে থাকে বলে তিনি উল্লেখ করেন। সে ক্ষেত্রে তিনি প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী যথাযথ কার্যক্রম সম্পন্ন করার আহ্বান জানান। তিনি দরপত্রে অনিয়ম, সিন্ডিকেট ও কাজের মান যথাযথ না হওয়ার বিষয়গুলি তদন্ত করে দেখার জন্য সাব কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেন।

তার সেই প্রস্তাব আমলে নিয়ে কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন সাব কমিটি গঠন করেন। বৈঠকে সভাপতি বলেন, ঠিকাদারদের সিন্ডিকেটের কারণে কতিপয় ঠিকাদার ঘুরে ফিরে কাজ পাওয়ায় কাজের মান ও গতি দুটোই সন্তোষজনক হয় না এবং নতুন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানও সৃষ্টি হয় না। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী ঠিকাদারদের কাজ দেওয়ার বিষয়ে নির্দেশনা প্রদান করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বিবেচনায় নিয়ে জনস্বার্থে কাজের গতি ও মান বজায় রাখার লক্ষ্যে ভূয়া ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান একই ঠিকাদার বার বার কাজ পাওয়া এবং একটি প্রতিষ্ঠান অন্য প্রতিষ্ঠানের কাগজপত্র প্রদর্শন করে টেন্ডারে অংশগ্রহণ করে মর্মে অভিযোগ রয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়ার অনিয়ম, দুর্নীতি বন্ধ করে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সাব কমিটি গঠন করার প্রস্তাব করেন।

মূল কমিটির বেঁধে দেওয়া সময় অনুযায়ী এতদিনে সেই তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু প্রায় আড়াই মাস পরে নবম বৈঠক হলেও সাব কমিটি কোন বৈঠক করতে পারেনি বলে মূল কমিটিকে জানিয়েছে। এমনকি সাব কমিটি আরও তিন মাস সময় চেয়েছে। তবে সভাপতি তিন মাস না, পরবর্তী দুই মাসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলেছে।

এবিষয়ে সাব কমিটির সদস্য মো. আবু জাহির বার্তা২৪.কম-কে মোবাইল ফোনে বলেন, কমিটির আহ্বায়ক উনি করোনায় আক্রান্ত। যে কারণে আমরা বসতে পারিনি। এখনো কোন বৈঠক হয়নি। আমরা বসলে তখন বিস্তারিত বলতে পারব।

ঠিকাদার সিন্ডিকেট বা অনিয়ম এবিষয়ে আপনার অভিমত কী? এর জবাবে তিনি বলেন, আমরা তো আর মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেউ না। এটা আসলে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে এই জিনিসটা তুলে ধরেছি। এখন বসলে বিষয়টা বলতে পারব।

কমিটির সদস্য মো. আবু জাহির এর কথার সূত্র ধরে খোঁজ নিয়ে জানা যায় কমিটির আহ্বায়ক শেখ সালাউদ্দিন গত ১৬ ফেব্রুয়ারি করোনা পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হন। তবে বর্তমানে তিনি করোনামুক্ত বলে জানা গেছে কমিটি সূত্রে।

বিষয়টি নিয়ে কমিটির সভাপতি মো. একাব্বর হোসেন ও অভিযোগ উত্থাপনকারী কমিটি সদস্য মো. এনামুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাদের কাউকে পাওয়া যায়নি। তবে কমিটির সভাপতির ফোন অন্য একজন রিসিভ করে বার্তা২৪.কম-কে বলেন, স্যার তো ডায়ালাইসিস করাচ্ছেন পরে কথা বলবেন। এর এক ঘণ্টা পর যোগাযোগ করা হলে জানানো হয় স্যার ঘুমিয়ে আছেন।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.