বিজেপির সঙ্গে টাকার জোরে অন্য কোনো দল পেরে উঠছে না বলে অভিযোগ করেছেন কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। অন্য দল এক টাকা খরচ করলে বিজেপি ১০ টাকা খরচ করছে।

ভারতের বেসরকারি সংগঠন এডিআরের প্রতিবেদনেও এর যথার্থতা মিলেছে।

সূত্র অনুযায়ী গত লোকসভা ভোটের আগের বছর (২০১৮-১৯ অর্থবর্ষে) বিজেপির সম্পত্তির পরিমাণ ছিল দ্বিতীয় স্থানে থাকা কংগ্রেসের তিন গুণেরও বেশি। জাতীয় রাজনৈতিক দলগুলোর মোট সম্পত্তির ৫৪ শতাংশ ছিল বিজেপির দখলে।

দেশটির জাতীয় ও আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর ঘোষিত তথ্য ও আয়কর রিটার্ন বিশ্লেষণ করে বৃহস্পতিবার ভারতের বেসরকারি সংগঠন এডিআর জানিয়েছে, ২০১৮-১৯ সালে বিজেপির সম্পত্তি ছিল ২ হাজার ৯০৪ কোটি টাকা। কংগ্রেসের ছিল ৯২৮ কোটি। তৃতীয় মায়াবতীর বিএসপির (৭৩৮ কোটি)।

সেই তুলনায় তৃণমূল কংগ্রেসের সম্পত্তি ছিল অনেক কম। মাত্র ২১০ কোটি টাকা। জাতীয় রাজনীতিতে কোণঠাসা ও পশ্চিমবঙ্গ-ত্রিপুরায় ক্ষমতাচ্যুত সিপিএমের সম্পত্তির অঙ্ক ছিল ৫১০ কোটি টাকা। মুলায়ম-অখিলেশ যাদবের এসপি এখনও জাতীয় রাজনৈতিক দলের তকমা না পেলেও সম্পত্তির নিরিখে জাতীয় দলগুলোর সমকক্ষ তারা। তাদের সম্পত্তির মূল্য ছিল প্রায় ৫৭২ কোটি টাকা।

বিজেপির তুলনায় শুধু যে কংগ্রেসের সম্পত্তি কম, তা নয়। আলোচ্য বছরে কংগ্রেসের দেনা ও বকেয়া ছিল ৭৮ কোটি টাকার বেশি। বিজেপির ঝুলিতে যদি জাতীয় রাজনৈতিক দলের অর্ধেকের বেশি সম্পত্তি থাকে, তা হলে দলগুলোর মোট দেনা ও বকেয়ার অর্ধেকের বেশি আবার কংগ্রেসের ঘাড়ে। বিজেপির দেনা মাত্র ৩৭ কোটি টাকা। তৃণমূলের তা ছিল ১০ কোটি টাকা।

এডিআরের প্রতিবেদন অনুযায়ী দেনা ও বকেয়া বাদে বিজেপির তহবিলের পরিমাণ ছিল ২,৮৬৬ কোটি টাকা। কংগ্রেসের ৮৫০ কোটি ও তৃণমূলের প্রায় ১৯৯ কোটি টাকা।

মোদ্দা কথায় ভারতের জাতীয় রাজনৈতিক দলগুলোর সম্পত্তির সম্মিলিত হিসাবের নিরিখে অর্ধেকের বেশি বিজেপির দখলে। সূত্র: আনন্দবাজার

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.