নোয়াখালী সদর উপজেলার চরমটুয়া ইউনিয়নে হাসিনা আক্তার (১৬) নামে দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রায়হান (১৭) নামে এক কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার সকালে তুলে নেয়ার পর দুপুরে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পরিবারের। এ ঘটনায় রায়হান নামে এক কিশোরকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত হাছিনা আক্তার চরমটুয়া ইউনিয়নের বেলাল হোসেনের মেয়ে। সে স্থানীয় একটি মাদ্রাসায় দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

নিহতের পরিবার অভিযোগ করে বলেন, সকাল ৯টার দিকে হাসিনা ঘর থেকে বের হয়ে মাদ্রাসার পাশে যাচ্ছিল। পথে নোয়াখালী জেলা শহর মাইজদীর লক্ষ্মীনারায়ণপুর এলাকায় রায়হান তাকে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় তুলে নিয়ে যায়। পরে মাইজদীর কোন এক বাসায় নিয়ে হাসিনাকে আটকে রেখে ধর্ষণ করে রায়হান। পরে হাসিনা তার বড় বোনকে ফোনে বিষয়টি বলে দেয়ায় তার বন্ধুদের নিয়ে হাসিনাকে হত্যা করে রায়হান। পরে হত্যাকারীরা হাসিনার লাশ হাসপাতালে নিয়ে এলে খবর পেয়ে পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে অভিযুক্ত রায়হানকে আটক করে।

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহেদ উদ্দিন জানান, আটক রায়হান জানিয়েছে তাদের দুইজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। সকালে রায়হানের সঙ্গে মাইজদীর একটি বাসায় ছিল হাসিনা। সেখানে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাসিনা আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে তাকে হাসপাতালে আনলে মারা যায়। এ ঘটনায় রায়হানকে আটক করা হয়েছে। নিহতের পরিবার থেকে লিখিত অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.