সুনামগঞ্জে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর সম্প্রতি হেফাজতে ইসলামের নেতা মামনুল হকের অনুসারীদের হামলার ঘটনায় মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় শাল্লা থানায় এই মামলা হয়।

শাল্লা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাজমুল হক মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, মামলায় আসামি করা হয়েছে ৭০০ জনকে। এর মধ্যে ৭০ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। বাকিরা অজ্ঞাত।

তদন্তের স্বার্থে এর বেশি জানাতে অপারগতা প্রকাশ করে ওসি বলেন, মামলার আসামিদের ধরতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে। তবে বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি বলে জানান তিনি।

হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মুহাম্মদ মামুনুল হক গত ১৫ মার্চ দিরাইয়ে হেফাজতে ইসলামের উদ্যোগে শানে রিসালাতে বক্তৃতা করেন। ওই সমাবেশে তার কিছু বক্তব্যে ক্ষুব্ধ হন শাল্লা উপজেলার হবিবপুর ইউনিয়নের নোয়াগাও গ্রামের এক তরুণ। তিনি মামুনুলের সমালোচনা করে মঙ্গলবার ফেসবুকে একটি পোস্ট দেন। এতে মামুনুল হক অনুসারীরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন।

এই ঘটনায় ওই যুবকের গ্রামে (উপজেলার নোয়াগাঁও) গত বুধবার সকালে অতর্কিত হামলা চালানো হয়। এ সময় খবর পেয়ে ভয়ে গ্রামবাসী পালিয়ে গেলে তারা গ্রামে ঢুকে তাণ্ডব চালায়। হামলাকারীরা গ্রামের অর্ধশতাধিক ঘর-বাড়ি, মন্দির ভাঙচুর করে। তবে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করার পর পুলিশ ও র‌্যাবের অস্থায়ী ক্যাম্প করা হয়েছে। এই ঘটনার পর বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান।

এসময় দোষীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তির দাবি জানান র‌্যাবের মহাপরিচালকের কাছে ভুক্তভোগী গ্রামের বাসিন্দারা।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.