ত্রিদেশীয় ফুটবল টুর্নামেন্ট খেলতে বৃহস্পতিবার নেপালে যাচ্ছেন বাংলাদেশের ফুটবলাররা। ট্রফি জেতার লক্ষ্যেই এই সফরে যাচ্ছেন বলে মন্তব্য করেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের ডিফেন্ডার সোহেল রানা। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে আজ(বুধবার)অনুশীলন শেষে সাংবাদিকতদের এই কথাই জানান তিনি।

আসন্ন এই সিরিজ নিয়ে সোহেল বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি, আমরা নেপাল থেকে ট্রফি নিয়ে আসতে পারব। সে লক্ষ্য নিয়েই যাচ্ছি। তবে যতো ভালো দলই হোক না কেন, কেউ ঘোষণা দিয়ে বলতে পারবে না যে চ্যাম্পিয়ন হবো। আমাদের চেষ্টা থাকবে যাতে ট্রফিটা বাংলাদেশে নিয়ে আসতে পারি।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা যেহেতু লম্বা সময় লিগ খেলেছি, তাই কোচ এখন রিকভারির দিকে নজর দিচ্ছেন। আমাদের কাছে কোচ যা চাচ্ছেন, সেগুলো যেন দিতে পারি সেটাই দেখিয়ে দিচ্ছেন। পাসিং, ডিফেন্সিং ও ফিনিশিং নিয়ে আজ কাজ করেছেন কোচ। টেকনিক্যাল যে বিষয়গুলো আছে তা নেপাল গিয়েই বেশি করে দেখাবেন কোচ। প্রতিপক্ষ দুই দলের দুর্বল ও শক্ত জায়গাগুলো নিয়ে কাজ করবেন।’

বাংলাদেশি এই ফুটবলারের মুখে ট্রফি জয়ের কথা শোনা গেলেও দলীয় হেডকোচ জেমি ডে জানালেন ভিন্ন কথা। ট্রফি জেতা-হারা মুখ্য বিষয় নয়। এই টুর্নামেন্ট জেতার চেয়ে নবীনদের সুযোগ দেয়াই হবে তার প্রধান কাজ। তবে ট্রফি জিতলে সেটা অবশ্যই খারাপ কিছু নয়।

এ বিষয়ে কোচ জেমি ডে বলেন, ‌‌‘নেপালে ট্রফি জিতলে সেটি হবে দারুণ ব্যাপার। আমাদের জন্য বোনাস। ঢাকা ফিরে ট্রফিটা সামনে নিয়ে আমরা সংবাদ সম্মেলন করব। কিন্তু আমি ভাবছি অন্য কথা। আমরা যদি এই টুর্নামেন্টে নতুন ফুটবলারদের পরখ করতে পারি, তাহলে সেটি হবে জুনে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ৩ ম্যাচের জন্য দারুণ ব্যাপার।’

এর আগে ২৪ সদস্যের স্কোয়াড ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন। পরে ২৫তম ফুটবলার হিসেবে বাংলাদেশ পুলিশের ফরোয়ার্ড মোহাম্মদ জুয়েলকে ডাকা হয়। এখন এই ২৫ জনকে নিয়েই বাংলাদেশ দল কাঠমান্ডু যাবে। নিজেদের প্রথম ম্যাচে ২৩ মার্চ কিরগিজস্তান অনূর্ধ্ব–২৩ দলের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। ২৭ মার্চ দ্বিতীয় ও শেষ গ্রুপ ম্যাচ নেপালের বিপক্ষে। ফাইনাল ২৯ মার্চ।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.