অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের টিকা পর্যালোচনা করতে বৈঠকে বসছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। এরই মধ্যে জার্মানি, ইতালি, স্পেন ও ফ্রান্সসহ ইউরোপের এগারোটি দেশ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত টিকা প্রদান স্থগিত করেছে। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই টিকাকে নিরাপদ উল্লেখ করে টিকাদান অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়েছে। খবর বিবিসির

ইউরোপের কয়েকটি দেশে এই টিকা দেয়ার পর ব্লাড ক্লট বা শরীরে রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। যদিও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাধারণ সময়ে এ ধরনের যত ঘটনা ঘটে এই সংখ্যা তারচেয়ে অস্বাভাবিক নয়। ইউরোপের ওষুধ বিষয়ক কেন্দ্রীয় সংস্থা ইউরোপিয়ান মেডিসিন এজেন্সিও মঙ্গলবার বৈঠকে বসবে।

বৈঠকের পর ধারণা করা হচ্ছে, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিষয়ে বৃহস্পতিবার একটি সিদ্ধান্ত জানাবে সংস্থাগুলো।

ইউরোপ এবং যুক্তরাজ্যের ১৭ মিলিয়ন মানুষকে এই টিকার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলছে, টিকা দেয়ার ফলে রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার ঝুঁকি বাড়ে এমন কোন প্রমাণ নেই। পুরো ইউরোপ এবং যুক্তরাজ্য মিলে যারা টিকা দিয়েছেন তাদের মধ্যে ডিপ-ভেইন থ্রম্বোসিস ডিভিটি—মানে শিরায় রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার মোট ১৫টি ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া পালমোনারি এম্বোলিজম বা জমাট বাধা রক্তের কণিকা ফুসফুসে চলে যাবার ২২টি ঘটনা ঘটেছে।

এই মূহুর্তে ফাইজার বায়োএনটেকের টিকা পৃথিবীর ৭০টি দেশে দেয়া হচ্ছে, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া হচ্ছে ৬৫টি দেশে।

মর্ডানার টিকা দেয়া হচ্ছে ৩২ টি দেশে এবং সিনোফার্মের টিকা দেয়া হচ্ছে ১৯টি দেশে। এছাড়া রাশিয়ার স্পুটনিক ভি ১৭টি দেশে, চীনের সিনোভ্যাক ১১টি দেশে দেয়া হচ্ছে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.