আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে সরগরম ভারতের পশ্চিমবঙ্গ। মনে করা হচ্ছে যে রাজ্যে ক্ষমতাসীন তৃণমূলের সঙ্গে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির সঙ্গে টক্কর হবে। তবে এরই শক্ত প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে বাম ও কংগ্রেসের সঙ্গে ফুরফুরা পিরজাদা আব্বাস সিদ্দিকির ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের (আইএসএফ) জোট। নির্বাচনে বড় চমক সৃষ্টি করতে পারেন আব্বাস সিদ্দিকি।

রবিবার সন্ধ্যায় এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ২১ জন প্রার্থীর নাম জানিয়েছে আইএসএফ। যদিও, আগেই বসিরহাট উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রে সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী হিসেবে পীরজাদা বাইজিদ আমিন-এর নাম ঘোষণা করা হয়।

বামফ্রন্ট ও কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করে এ বারে ভোটে লড়ছে আব্বাস সিদ্দিকির দল। আসন বন্টন নিয়ে তিন পক্ষের মধ্যে ‘দড়ি টানাটানি’ ব্রিগেড সমাবেশের মঞ্চ পর্যন্ত পৌঁছয়। শেষমেশ বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসুর মধ্যস্থতায় জট খোলে। এখনও পর্যন্ত ৩৭টি আসনে আইএসএফ প্রার্থী দেবে বলে ঠিক হয়েছে। কংগ্রেস প্রার্থী দিচ্ছে ৯২টি আসনে। বাকি আসনগুলিতে প্রার্থী বামফ্রন্টের সব শরিক দল।

দলছুট তৃণমূল নেতারাও জায়গা পেয়েছেন আব্বাসের তালিকায়। মেটিয়াবুরুজে নুরুজ্জামান ও উলুবেড়িয়া পূর্বে আব্বাসউদ্দিন সদ্য তৃণমূল ছেড়ে আইএসএফে যোগ দিয়েছেন। ওই দু’জনকেই টিকিট দেওয়া হয়েছে।

আইএসএফ প্রকাশিত তালিকায় রায়পুরে মিলন মান্ডি, মহিষাদলে বিক্রম চট্টোপাধ্যায়, চন্দ্রকোনায় গৌরাঙ্গ দাস, কুলপিতে সিরাজু্দ্দিন গাজী, মন্দিরবাজারে সঞ্জয় সরকার, জগৎবল্লভপুরে শেখ সাব্বির আহমেদ, হরিপালে সিমল সরেন, খানাকুলে ফাইসাল, মেটিয়াবুরুজে নুরুজ্জামান, উলুবেড়িয়া পূর্বে আব্বাসউদ্দিন খান, রানাঘাট উত্তর-পূর্বে দীনেশচন্দ্র বিশ্বাস, কৃষ্ণগঞ্জে অনুপ মণ্ডল, সন্দেশখালিতে বরুণ মাহাতো, চাপড়ায় কাঞ্চন মৈত্র, অশোকনগরে তাপস চক্রবর্তী, আমডাঙায় জামালউদ্দিন, আসানসোল উত্তরে মহম্মদ মোস্তাকিন এবং এন্টালিতে মহম্মদ ইকবাল আলম।

এ ছাড়াও জোটে ক্যানিং পূর্ব, জাঙ্গিপাড়া, মধ্যমগ্রাম, হাড়োয়া, ময়ূরেশ্বরে প্রার্থী দেবে আব্বাসের দল। ওই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গের দেগঙ্গা ও মগরাহাটের মতো আসনেও প্রার্থী দেবে তারা।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.