নিরাপত্তা উদ্বেগের কারণে অ্যাস্ট্রেজেনেকার টিকা স্থগিত রাখার পর অবশেষে টিকাদান কর্মসূচি শুরু করছে থাইল্যান্ড। আগামীকাল মঙ্গলবার থেকে তারা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রেজেনেকার টিকা দেয়া শুরু করবে। খবর রয়টার্সের।

সোমবার থাইল্যান্ডের সরকারি মুখপাত্র অফিসের পরিচালক নাট্রিয়া থাওয়েওং টিকাপ্রদান শুরু সম্পর্কে ঘোষনা দেন। এর আগে গত শুক্রবার টিকা নেয়ার পর রক্ত জমাট বেঁধে যাওয়ার রিপোর্টে পর অ্যাস্ট্রেজেনেকার টিকা স্থগিত করে থাইল্যান্ড। তার আগে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কয়েকটি দেশ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকাদান স্থগিত করে।

সোমবার সকালে থাইল্যান্ডের স্বাস্থ্যমন্ত্রী আনুতিন চার্নভিরাকুল জানান, মঙ্গলবার স্থানীয় স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা রক্ত জমাট বাঁধার বিষয়ে মন্ত্রী পরিষদের কাছে রিপোর্র্ট জমা দিবে।

গত শুক্রবার থাইল্যান্ডের ভ্যাকসিন কমিটির উপদেষ্টা পিয়াসাকল সাকলসাতায়ার্ডন বলেছিলেন, থাই নাগরিকদের জন্য ভ্যাকসিন ইনজেকশন অবশ্যই নিরাপদ হতে হবে। তাড়াহুড়া করে ভ্যাকসিন কর্মসূচি শুরু করার কিছু নেই।

গত সপ্তাহে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা গ্রহীতাদের গুরুতর রক্ত জমাট বাঁধার রিপোর্ট সামনে আসার পর ডেনমার্ক, অস্ট্রিয়াও এই টিকা প্রয়োগের কাজ বন্ধ ঘোষণা করে। এছাড়া এস্তোনিয়া, লাটভিয়া, লিথুয়ানিয়া এবং লুক্সেমবার্গও অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার একটি ব্যাচ বাতিল করে।

যদিও গত বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে ইউরোপীয়ান মেডিসিন এজেন্সি (ইএমএ) জানায়, ‘টিকা নেয়ার কারণে রক্ত জমাট বেঁধে এ ধরনের ঘটনা ঘটছে বলে কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি। এমনকি এটা টিকার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবেও তালিকাভুক্ত করা হয়নি।’বিবৃতিতে আরও বলা হয়, যে ঝুঁকির কথা বলা হচ্ছে এর থেকে আসলে টিকা নেয়ার লাভই বেশি। করোনার টিকাদান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়া যেতে পারে এবং একইসঙ্গে টিকা নেয়ার সঙ্গে শরীরের রক্ত জমাট বাঁধার কোনো সম্পর্ক আছে কিনা- সে বিষয়ে তদন্তও অব্যাহত থাকবে।

সংস্থাটির দাবি, এ পর্যন্ত ইউরোপের প্রায় ৫০ লাখ মানুষ করোনার এই টিকা নিয়েছেন। কিন্তু এর মধ্যে টিকা নেওয়ার পর রক্ত জমাট বাঁধার ঘটনা ঘটেছে ৩০টি। এর আগে বুধবার ইএমএ জানায়, অস্ট্রিয়ায় ব্যবহৃত অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা নার্সের মৃত্যুর জন্য দায়ী নয় বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সংস্থা জানায়, অক্সফোর্ডের টিকা গ্রহণের পর রক্ত জমাট বাঁধার কোনো আভাস মেলেনি। এমন কোনো প্রমাণও তাদের হাতে নেই। গত শুক্রবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মুখপাত্র মার্গারেট হ্যারিস বলেন, রক্ত জমাট বাঁধা ও অক্সফোর্ডের টিকার কোনো যোগসূত্র নেই। এটি চমৎকার টিকা এবং এর ব্যবহার অব্যাহত রাখা উচিত। তিনি আরও বলেন, আমরা যা দেখব তা আমরা সব সময় দেখে থাকি—যেকোনো নিরাপত্তা সংকেত অবশ্যই খতিয়ে দেখা হবে।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.