অন্যান্য বছর ডিসেম্বরে খানিকটা বৃষ্টির দেখা মেলে। জানুয়ারি থেকে মার্চেও কিছু কিছু বৃষ্টি হয়। তবে এবারের চিত্র ভিন্ন। বছরের প্রথম বৃষ্টির দেখা মিলল ফাল্গুনের বিকালে।

শনিবার বিকালে রাজধানীর আকাশ হঠাৎ ঢেকে যায় কালো মেঘে। দুপুর থেকেই বৃষ্টি নামবে নামবে ভাব করছিল। বিকাল সোয়া ৪টা নাগাদ শুরু হয় ধূলিঝড়, সঙ্গে দমকা হাওয়া। কিছুক্ষণ পরই এক পশলা বৃষ্টি শান্ত করেছে প্রকৃতিকে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, রাজধানী ঢাকাসহ ছয় জেলায় ঝরেছে বৃষ্টি। অবশ্য ঢাকার বাইরে কোথাও কোথাও সকাল থেকেই হালকা থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে উত্তরাঞ্চল এবং পূর্বাঞ্চলের দুই-এক জায়গায় বৃষ্টির খবর পাওয়া গেছে।

একদিন আগে বুধবার আবহাওয়া অফিস জানিয়েছিল, ঢাকাসহ দেশের ১০ জেলার বিভিন্ন অঞ্চলে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। পূর্বাভাস এসব এলাকায় ঝড়ের পাশাপাশি বজ্রসহ বৃষ্টিপাতেরও আভাস দেয়া হয়।

পূর্বাভাসে বলা হয়, পশ্চিমা লঘুচাপের বর্ধিতাংশ হিমালয়ের পাদদেশীয় পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে।

খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি, নোয়াখালী ও কুমিল্লার বিভিন্ন অঞ্চলসহ রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা এবং সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ দেশের অন্যত্র আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে।

দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। তবে রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। গতকাল সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল তেঁতুলিয়ায় ১৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল যশোরে ৩২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.