করোনা মহামারির শুরুর পর বিশ্বের অনেক দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ভ্যাকসিন উৎপাদনের চেষ্টায় নামে দেশীয় কোম্পানি গ্লোব বায়োটেক ফার্মাসিউটিক্যালস। কোম্পানিটির দাবি অনুযায়ী প্রাণীর ওপর ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পর মানবদেহে এর পরীক্ষা চালাতে গত ১৭ জানুয়ারি মহাখালীতে বাংলাদেশ মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিলে (বিএম‌আরসি) ইথিক্যাল ক্লিয়ারেন্সের আবেদন জমা দেয়া হয়। পরে বিএমআরসির নির্দেশনা অনুযায়ী তিন সপ্তাহ আগে শতাধিক বিষয়ে পরিমার্জন, পরিবর্ধন ও সংশোধিত প্রটোকল ও প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত জমা দেয় গ্লোব বায়োটেক। এখন বিএমআরসি থেকে দ্রত প্রতিবেদন পাওয়ার অপেক্ষায় আছে গ্লোব বায়োটেক। তবে এ ব্যাপারে প্রত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে যা নিরসন করেন গ্লোব বায়োটেকের ব্যবস্থাপক ড. মো. মহিউদ্দিন।

তিনি ঢাকাটাইমসকে বলেন, ৩ মার্চ একাধিক পত্রিকায় প্রকাশিত গ্লোব বায়োটেকের টিকা বঙ্গভ্যাক্স নিয়ে বিএমআরসির ইথিক্যাল কমিটির বরাত দিয়ে একটি আংশিক খবর প্রকাশিত হয়েছে, যাতে বলা হয়েছে ইথিক্যাল কমিটি বঙ্গভ্যাক্সের কাগজপত্র পর্যালোচনা করে প্রায় শতাধিক বিষয়ে পরিমার্জন, পরিবর্ধন ও সংশোধনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

পূর্ণাঙ্গ তথ্য হচ্ছে, বঙ্গভ্যাক্সের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রিন্সিপ্যাল ইনভেস্টিগেটর প্রফেসর ডা. মামুন আল মাহতাব ১৭ জানুয়ারি বিএমআরসিতে প্রটোকল জমা দেন। এরপর ইথিক্যাল কমিটি প্রটোকল পর্যালোচনা করে প্রায় শতাধিক বিষয়ে পর্যবেক্ষণ দিয়ে ৯ ফেব্রুয়ারিতে ইস্যুকৃত একটি চিঠি ১১ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার বিকালে ডা. মামুন আল মাহতাবকে দেয়। তিনি অতিদ্রুত ইথিক্যাল কমিটির সকল প্রশ্নের যথাযথ উত্তরসহ সংশোধিত প্রটোকল ও প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত ১৭ ফেব্রুয়ারি বুধবার সকাল ১০ টায় বিএমআরসিতে জমা দেন। এরপর থেকে আজ পর্যন্ত বিএমআরসি থেকে আমরা আর কোনো প্রকার প্রতিক্রিয়া পাইনি।

এ অবস্থায় গ্লোব বায়োটেকের ব্যবস্থাপক ড. মো. মহিউদ্দিন দ্রুত বিএমআরসি থেকে প্রতিবেদন পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.