রমনা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় আটকের পর নির্যাতনের শিকার হয়েছেন এমন অভিযোগ করে নির্যাতনকারীদের বিরুদ্ধে মামলা নিতে আদালতের কাছে আবেদন করেছেন কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর।

বুধবার দুপুরে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশের আদালতে নির্যাতনের বর্ণনা দেন কিশোর। জবানবন্দি গ্রহণের পর পরে আদেশ দেবেন বলে আদালত জানিয়েছে।

আদালতে হাজির হওয়ার পর কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর বলেন, আমাকে আটকের পর নির্যাতন করা হয়েছে। আমি এ বিষয় নির্যাতনকারীদের বিরুদ্ধে আদালতে কাছে মামলা নেয়ার আবেদন করেছি।

কিশোরের আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, আটকের পর কিশোরকে নির্যাতন করা হয়েছে। নির্যাতনে তার কানের পর্দা ফেটে গেছে। আমরা আজ আদালতে হেফাজতে নির্যাতন আইনে মামলা নিতে আবেদন করেছি। আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করেছেন। এ বিষয় পরে আদেশ দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আদালত।

গত বছরের মে’তে কার্টুনিস্ট আহমেদ কবির কিশোর ও লেখক মুশতাক আহমেদকে রাজধানীর কাকরাইল ও লালমাটিয়া থেকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। এরপর কিশোর ও মুশতাকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে রমনা থানায় মামলা দায়ের করা হয়। গত ২৫শে ফেব্রুয়ারি কারাবন্দি অবস্থায় মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর হয়।

এ ঘটনার পর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে আন্দোলন শুরু করে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন। সমালোচনার ঝড় উঠে চারদিকে।

গত ৩ মার্চ হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ কার্টুনিস্ট কিশোরের ৬ মাসের জামিন মঞ্জুর করেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় প্রক্রিয়াগত ত্রুটি ও কার্টুনিস্ট কিশোরের অসুস্থতার কথা জানিয়ে তার জামিনের আর্জি জানিয়েছিলেন আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া।

জামিনের পর আইনজীবী জ্যোতির্ময় বড়ুয়া জানান, নিম্ন আদালতে জামিন না পেয়ে গত ২১ জানুয়ারি হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেন কার্টুনিস্ট কিশোর ও লেখক মুশতাক আহমেদ। ২৫ ফেব্রুয়ারি গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কারাগারে বন্দি অবস্থায় মারা যান লেখক মুশতাক আহমেদ। ১ মার্চ এই আবেদন শুনানির জন্য আদালতে ওঠে। সেদিন মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর বিষয়টি আদালতকে জানানো হয়। আদালত মুশতাকের বিষয়ে লিখিত হলফনামা দিতে বলেন এবং কিশোরের জামিন শুনানি করেন। শুনানি শেষে তার জামিন মঞ্জুর করেন।

By admin

Leave a Reply

Your email address will not be published.